জিলহজ গ্রুপ বাংলাদেশ

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সেবা প্রদান কারী হজ ও উমরাহ প্রতিষ্ঠান

Zilhajj Group

And when they opened their baggage, they found their merchandise returned to them. They said, "O our father, what [more] could we desire? This is our merchandise returned to us. And we will obtain supplies for our family and protect our brother and obtain an increase of a camel's load; that is an easy measurement."
Yusuf (Yusuf): 65

Home

পবিত্র হজ পালনের সঠিক নিয়ম

বিভাগসমূহ

Our Package

পবিত্র হজ পালনের সঠিক নিয়ম

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে পবিত্র হজ একটি। সামর্থ্যবান মুসলমানদের উপর অন্তত একবার হজকে ফরয করা হয়েছে। তাই প্রতিবছর জিলহ্বজ মাসে পবিত্র মক্কায় লাখ লাখ মুসলমান হজ পালন করে থাকেন। কিন্তু অনেকেই হজ পালনের সঠিক নিয়ম কানুন না জানার কারণে মক্কায় গিয়ে কিছুটা বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন। তাই এখনই জেনে নিন পবিত্র হজ পালনের সঠিক নিয়ম।

১। হজ কি?
হজ আরবি শব্দ। অর্থ নিয়ত করা, দর্শন করা, সঙ্কল্প করা, এরাদা করা, গমন করা, ইচ্ছা করা, প্রতিজ্ঞা করাসহ , কোনো মহৎ কাজে ইচ্ছা করা। আর শরিয়তের পরিভাষায় নির্দিষ্ট দিনে নিয়তসহ ইহরামরত অবস্থায় আরাফার ময়দানে অবস্থান করা এবং বায়তুল্লাহ শরীফ তাওয়াফ করা।

আবার কেউ বলেন, জিলহজ্বের ৯ তারিখ ইহরাম বেঁধে আরাফাতের মাঠে অবস্থানসহ কয়েকটি নির্দিষ্ট স্থানে নির্ধারিত কয়েকটি আমল যথাযথভাবে আদায় করে কাবা গৃহ তাওয়াফ করাকে হজ্ব বলে।

আল-ফিকাউল ইসলামী গ্রন্থে বলা হয়েছে, “নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট কাজের মাধ্যমে নির্ধারিত স্থান যিয়ারত করা হল হজ ”।

শরহে বিকায়া গ্রন্থাগার বলেন, “নির্দিষ্ট সময়ে সুনির্দিষ্ট স্থান যিয়ারত করার নাম হল হজ ”।

আল-কামসুল ফিকহ গ্রন্থে আছে, “আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় একটা নির্ধারিত সময়ে মক্কা মুয়াযযামার বায়তুল হারামে গমনের নিয়ত পোষণ করাই হল হজ ”।
হজ যাদের উপর ফরয

(১) মুসলিম হওয়া।
(২) বালিগ হওয়া।
(৩) স্বাধীন হওয়া।
(৪) বিবেকবান হওয়া।

(৫)নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক যে ব্যক্তির এ পরিমাণ ধনসম্পদ আছে যে, সে হজের সফর (পথ খরচ) বহন করতে সক্ষম এবং তার অনুপস্থিতিকালীন তার পরিবারবর্গের প্রয়োজন মেটানোর মতো খরচও রেখে যেতে সক্ষম, এমন ব্যক্তির ওপর হজ ফরজ। অথবা এমন ব্যক্তি যে হজের মৌসুমে অর্থাৎ শাওয়াল মাস শুরু হওয়া থেকে সৌদি আরবে অবস্থানরত ছিল এবং জিলহজ মাস পর্যন্ত সৌদি আরবে অবস্থান করতে থাকে এবং তার ওপর যদি কোনো বিধি-নিষেধ, ওজর ও অসুবিধা না থাকে তাহলে তার ওপরও হজ পালন করা ফরজ ইত্যাদি।

(৬) যাতায়াতে নিরাপত্তা।
(৭) মহিলাদের সাথে মাহরুম থাকা।

হজ তিন প্রকার যথা :
এক-হজে তামাত্তু’
দুই-‘হজে কেরান’
তিন-‘হজে ইফরাদ’।

এক. হজে ইফরাদ : অর্থাৎ হজের সফর শুরু করার সময় মিকাত থেকে যদি শুধু হজের নিয়তে ইহরাম বাঁধে এবং হজের সঙ্গে ওমরাহ আদায় না করে তাহলে এ প্রকার হজকে ‘হজে ইফরাদ’ বলা হয়। এ প্রকার হজ পালনকারীকে শরিয়তের পরিভাষায় ‘মুফরিদ’ বলে।

দুই. হজে কিরান : যদি একই সঙ্গে হজ এবং ওমরাহর নিয়ত করে উভয়টিই পালন করে এবং হজ ও ওমরাহর জন্য একই ইহরাম বাঁধে, তাহলে এ ধরনের হজকে শরিয়তের পরিভাষায় ‘হজে কিরান’ বলা হয়। এ প্রকার হজ পালনকারীকে ‘কিরান’ বলে।

তিন. হজে তামাত্তু : অর্থাৎ হজের সঙ্গে ওমরাহকে এভাবে মেলানো যে ‘মিকাত’ থেকে শুধু ওমরাহর ইহরাম বাঁধা। এই ইহরামে মক্কায় পৌঁছে ওমরাহ পালনের পর ইহরাম ভেঙে ৭ জিলহজ সেখান থেকেই হজের ইহরাম বেঁধে হজ পালন করাকে শরিয়তের পরিভাষায় ‘হজে তামাত্তু’ বলে। এ প্রকারের হজ পালনকারীকে ‘মুতামাত্তি’ বলে।

এই তিন প্রকারের হজেরভিতর কিরান হজ সবচেয়ে ফযীলতপূর্ণ একটি হজ । দশম হিজরী সালে মুহাম্মদ (সাঃ) কিরান হজ সম্পাদন করেছিলেন।

২। হজের ফরজ
হজের ফরজ তিনটি-
১ম. ইহরাম বাঁধা অর্থাৎ হজ্বের নিয়ত করা। আল্লাহুম্মা ইন্নি উরিদুল হজ ওয়াল উমরাতা ওয়াজ জিয়ারাতা ফাইয়াস সিরহুলি ওয়াতাক্কাব্বালহু মিন্নি- অর্থ ‘ হে আল্লাহ! আমি হজ উমরা এবং কাবাগৃহ তাওয়াফের জন্য নিয়ত করলাম। তুমি তা কবুল কর।

ইহরাম বাঁধার নিয়ম : হজ ও ওমরাহর আমলগুলোর মধ্যে সর্বপ্রথম আমল হলো ইহরাম বাঁধা। ইহরাম বাঁধার নিয়ম হলো- হজ অথবা ওমরাহর নিয়তে সেলাইকৃত কাপড় খুলে সেলাইবিহীন দুটি চাদর পরিধান করে ‘তালবিয়াহ্’ পাঠ করা, শরিয়তের পরিভাষায় একেই ‘ইহরাম’ বলা হয়। ইহরাম বাঁধার উত্তম পদ্ধতি হলো-যখন ইহরাম বাঁধার ইচ্ছা করবে তখন প্রথমে গোসল অথবা অজু করবে, নখ কাটবে, বগল ও নাভীর নিচের চুল পরিষ্কার করবে এবং মাথা ও দাড়ি চিরুনি করে সর্ববিষয়ে পরিচ্ছন্নতা অর্জন করবে। ইহরামের জন্য দুটি নতুন অথবা ধোলাই করা পরিষ্কার চাদর হওয়া সুন্নত। একটি চাদর দিয়ে লুঙ্গি বানাবে অন্যটি দিয়ে চাদর বানাবে। ইহরামের কাপড় পরিধান করার পর নামাজের মাকরুহ সময় না হলে মাথা ঢেকে দুই রাকাআত নফল নামাজ আদায় করা মুস্তাহাব। নামাজ পড়ে মাথার কাপড় খুলে ফেলবে এবং যেই হজের ইচ্ছা করবে মনে মনে সেই হজের নিয়ত করে ইহরামের ‘তালবিয়াহ্’ পাঠ করবে।

তালবিয়াহ উচ্চারণ : ‘লাব্বাইকা আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা-শারীকালাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা ওয়ান নি’মাতা, লাকা ওয়াল মুল্ক লা-শারীকালাক’

২য়. জিলহজ্ব মাসের ৯ তারিখ ফজরের পর থেকে সূর্যাস্ত যাওয়া পর্যন্ত্ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা।

৩য়. তাওয়াফে জিয়ারাত অর্থাৎ মক্কা শরীফ পৌঁছার পর সর্বপ্রথম কাজটি হলো চারবার কাবাগৃহটি প্রদক্ষিণ করা আবার হজ্বের কাজ শেষ করে বাড়িতে ফিরার সময় সর্বশেষ কাজ হলো তিনবার কাবাগৃহ প্রদক্ষিণ করে রওনা হওয়া।

৩। হজের ওয়াজিব
ক. হজের ওয়াজিব কাজ সাতটি-
খ. সাফা ও মারওয়া উভয় পাহাড় সাতবার প্রদড়্গণি করা।
গ. মুজদালিফায় রাত যাপন করা।
ঘ. মিনায় তিনটি জামরাতে তিনদিনে প্রত্যেক জামরাতে ৭টি করে ৭*৭=৪৯টি পাথর শয়তানের উদ্দেশে নিক্ষেপ করা,
ঙ. মিনার ময়দানে কোরবানি করা,
চ. মাথা মু- করা,
ছ. ফরজ তাওয়াফ শেষে ৩ চক্কর দেয়া,
জ. বিদায়ী তাওয়াফ করা

৪। হজের গুরুত্ব এবং ফযীলত
আল্লাহর নির্দেশ পালন: হজ একটি অন্যতম ফরজ ইবাদাত। হজ পালনের মাধ্যমে আল্লাহর নির্দেশ পালন হয়ে থাকে। আল্লাহ তায়ালা সামর্থবান মুসলিমের উপর হজ ফরজ করেছেন । কুরআনে এসেছে, ‘এবং সামর্থ্যবান মানুষের উপর আল্লাহর জন্য বায়তুল্লাহর হজ করা ফরয। আরযে কুফরী করে, তবে আল্লাহ তো নিশ্চয় সৃষ্টিকুল থেকে অমুখাপেক্ষী’। ( সূরা আলে ইমরান-৯৭)

যিকরুল্লাহ প্রতিষ্ঠা: হজ এমন একটি ইবাদাত যার প্রত্যেকটি কাজে আল্লাহর যিকর করা হয়। তাওয়াফ, সাঈ, রমঈল জিমার (পাথর নিক্ষেপ),মিনা,মুযদালিফাহ, আরাফাহসহ প্রত্যেকটি নির্দেশনায় আল্লাহর যিকরে ধ্বনিত, প্রতিধ্বনিত হচ্ছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,‘তারপর যখন তোমরা তোমাদের হজের কাজসমূহ শেষ করবে, তখন আল্লাহকে স্মরণ কর, যেভাবে তোমরা স্মরণ করতে তোমাদের বাপ-দাদাদেরকে, এমনকি তার চেয়ে অধিক স্মরণ। আর মানুষের মধ্যে এমনও আছে যে বলে, হে আমাদের রব, আমাদেরকে দুনিয়াতেই দিয়ে দিন। বস্ত্তত আখিরাতে তার জন্য কোন অংশ নেই।(সূরা আলবাকারাহ-২০০)।

আল্লাহ আরো বলেন, সুতরাং যখন তোমরা আরাফা থেকে বের হয়ে আসবে, তখন মাশআরে হারামের নিকট আল্লাহকে স্মরণ কর এবং তাকে স্মরণ কর যেভাবে তিনি তোমাদেরকে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। যদিও তোমরা এর পূর্বে অবশ্যই পথভ্রষ্টদের অন্তর্ভুক্ত ছিলে।’ (সূরা আলবাকারাহ-১৯৮)

জাহান্নামদের আযাব থেকে মুক্তি দানঃ হজ জাহান্নামের আগুন থেকে পরিত্রান দান করে। মহানবী (সঃ) বলেন; মহান আল্লাহ আরাফাতের দিন যত মানুষকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দান করেন অন্যকোন দিনে এত লোককে মুক্তি দেন না। (মুসলিম)

হজ পালনকারী সদ্যজাত শিশুর মত নিষ্পাপ হয়ে যায়: হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন; আমি রাসূল (সঃ) কে বলতে শুনেছি; যে ব্যক্তি হজ করে এবং হজ কালে যৌন সম্ভোগ ও কোনপাপাচারী কাজে লিপ্ত হয় না। সে ব্যক্তি সদ্য মাতৃগর্ভ থেকে ভুমিষ্ট শিশুরমত নিষ্পাপ হয়েবাড়ি ফিরে যায়। (বুখারী ও মুসলিম)। এক হাদীসে এসেছে, ‘তোমরা পর-পর হজ ও উমরা আদায় করো। কেননা তা দারিদ্র ও পাপকে সরিয়ে দেয় যেমন সরিয়ে দেয় কামারের হাপর লোহা-স্বর্ণ-রুপার ময়লাকে। আর হজ্জে মাবরুরের প্রতিদান তো জান্নাত ভিন্ন অন্য কিছু নয়। (সহিহ নাসায়ী)

হজ্জের এক মাত্র প্রতিদান জান্নাত: হজের বিনিময় জান্নাত ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না। হযরত আবু হুরায়রা থেকে বর্ণিত; মহানবী (সঃ)বলেন; একউমরাহ হতে অন্য উমরাহ অন্তরবর্তী কালীন সময় গুনাহের কাফ্ফারা হয়। আর মাবরূর(গৃহীত ) হজ্জের একমাত্র প্রতিদান হল জান্নাত। (বুখারী ও মুসলিম)

বিধর্মী হওয়া থেকে মুক্তিঃ যাদের উপর হজ ফরয হওয়ার পর হজ না করে মৃত্যুবরণ করবে তাদের ব্যাপারে কঠোর হুশিয়ারী দেওয়া হয়েছে। রাসূল(সাঃ) বলেন, “যার উপর হজ ফরয হল অথছ সে যদি হজ না করে মৃত্যুবরণ করে তাহলে সে কি ইয়াহূদী হয়ে মরল নাকি খ্রিষ্টান হয়ে মরল তাতে আমার কিছু যায় আসে না।”

উত্তম নেক আমলঃ যারা সঠিকভাবে হজ সম্পাদন করবে তারা ইসলামের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ করার সৌভাগ্য অর্জন করবে। রাসূল (সাঃ) বলেন, ‘উত্তম আমল কি এই মর্মে রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে জিজ্ঞাসা করা হল। উত্তরে তিনি বললেন, ‘আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি ঈমান। বলা হল, ‘তারপর কী’? তিনি বললেন, আল্লাহর পথে জিহাদ। বলা হল তারপর কোনটি? তিনি বললেন, মাবরুর হজ । (বুখারী) একদা রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে প্রশ্ন করে আয়েশা (রাঃ) বলেন, ‘ইয়া রাসূলাল্লাহ! আমরা কি আপনাদের সাথে জিহাদে ও অভিযানে যাব না? তিনি বললেন, ‘তোমাদের জন্য উত্তম ও সুন্দরতম জিহাদ হল ‘হজ ’, তথা মাবরুর হজ ।” (বুখারী)

আল্লাহর উদ্দেশ্য পূর্ণঃ আল্লাহ পাক মানুষকে এই উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করেছেন যে,তারা কেবলমাত্র এক আল্লাহর ইবাদত করবে। যারা হজ করবে তাদের সেই উদ্দেশ্য পূর্ণ হবে।তাই আল্লাহ বলেন, [বাকারাঃ২০০]

মুহাম্মদ (সাঃ) এর সাথে সাক্ষাৎ লাভঃ যারা হজ পালন করবে তারা আমাদের প্রিয়নবী মুহাম্মদ(সাঃ) এর সাথে সাক্ষাৎ করার সৌভাগ্য অর্জন করবে। এই ব্যাপারে মুহাম্মদ(সাঃ) বলেন, “আমার মৃত্যর পর যে হজ করল আর আমার কবর যিয়ারত করল সে যেন আমার সাথে জীবিত অবস্থায় সাক্ষাৎ করল”।

আল্লাহর নৈকট্য লাভঃ হজ ব্রত অবস্থায় আল্লাহর একজন প্রিয়বান্দা বিভিন্ন ধরনের আমল পালন করে।আল্লাহর যিকির করে থাকে।কাবা শরীফ প্রদক্ষিণ করে থাকে। এসকল আমলের মধ্য দিয়ে একজন বান্দা অতি সহজে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করতে পারে।

চারিত্রিক বিশুদ্বতাঃ হজ ব্রত অবস্থায় মানুষ সহজে তার চারিত্রিক বিশুদ্বতা অর্জন করতে পারে।কারণ হজ অবস্থায় ঝগড়া করা,হাঙ্গামা সৃষ্টি করা, গীবত করা, হিংসা করা, কৃপনতা প্রদর্শন করা, অপচয় করা সম্পূর্ণরুপে নিষিদ্ব।তাই হাজীগণ এই সময় এসকল খারাপ কাজ থেকে নিজেদের বিরত রাখার জন্য চেষ্টা করে এবং এর দ্বারা সে তার চরিত্রকে পূত-পবিত্র করতে পারে।

সামগ্রিক ইবাদত পালনঃ নামায এবং সাওম হল কেবল দৈহিক ইবাদত আর যাকাত হল আর্থিক ইবাদত।আর হজ এমন একটি ইবাদত যা কিনা দৈহিক এবং আর্থিক উভয় ইবাদতের সমন্বয়ে সাধিত হয়।তাই রাসূল(সাঃ) বলেন, “উত্তম জিহাদ হল হজ ”।

আখিরাতের কথা স্মরণঃ হজের প্রত্যেকটি কাজ মানুষকে আখিরাতের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। ১. এহরামের কাপড় গায়ে জড়িয়ে আত্মীয়-স্বজন ছেড়ে হজ্জের সফরে রওয়ানা হওয়া কাফন পরে আত্মীয়-স্বজন ছেড়ে আখেরাতের পথে রওয়ানা হওয়াকে স্মরণ করিয়ে দেয়।হজ্জের সফরে পাথেয় সঙ্গে নেয়া আখেরাতের সফরে পাথেয় সঙ্গে নেয়ার প্রয়োজনয়ীতাকে স্মরণ করিয়ে দেয়।এহরাম পরিধান করে পুত-পবিত্র হয়ে আল্লাহর দরবারে হাজিরা দেয়ার জন্য ‘লাব্বাইক’ বলা সমস্ত গুনাহ-পাপ থেকে পবিত্র হয়ে পরকালে আল্লাহর কাছে হাজিরা দেয়ার প্রয়োজনীয়তাকে স্মরণ করিয়ে দেয়। আরো স্মরণ করিয়ে দেয় যে এহরামের কাপড়ের মতো স্বচ্ছ-সাদা হৃদয় নিয়েই আল্লাহর দরবারে যেতে হবে।

Dear Please Subscribe With US

সাম্প্রতিক প্রকাশনাসমূহ

Best & Cheap Hotels

  • All Arab Hotel

    Very Cheap rate for Arab Visitor in any middle east country.

  • Kids Shop bangladesh

    4th Generation Modern stylist Baby's Item .

  • AllHotel Finder

    world wide 220 countries Hotel booking cheap rated from other competitor.

zilhajj Group

Hijri
0030309
Your IP: 107.22.83.0

মন্তব্য করুন

জিলহজ গ্রুপ বাংলাদেশ © 2016 zilhajjgroupZilhajjgroup.com Zilhajj Group
>
Facebook
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.